Don't Miss
হোম / জাতীয় / শপথ নিলেন নতুন প্রধান বিচারপতি

শপথ নিলেন নতুন প্রধান বিচারপতি

শপথ নিলেন নতুন প্রধান বিচারপতি

দেশের দ্বাবিংশতম প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নিয়েছেন সৈয়দ মাহমুদ হোসেন যিনি পদত্যাগী বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার স্থলাভিসিক্ত হলেন।
শনিবার সন্ধ্যা ৭টার পর বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ নতুন প্রধান বিচারপতিকে শপথ পড়ান।
বঙ্গভবনের দরবার হলে এই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, মন্ত্রিসভার জ্যেষ্ঠ সদস্য, সাবেক প্রধান বিচারপতি, উচ্চ আদালতের জ্যেষ্ঠ আইনজীবীসহ সরকারের পদস্থ বেসামরিক-সামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
শপথ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।
রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ শুক্রবার নতুন প্রধান বিচারপতি নিয়োগের আদেশে সই করেন।
এর পরপরই পদত্যাগ করেন আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠতম বিচারক মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা, যিনি প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।
আওয়ামী লীগ সরকার আমলে নিয়োগ পাওয়া সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বিএনপি সরকার আমলে ২০০৩ সালে হাইকোর্টের স্থায়ী বিচারক হন। ২০১১ সালে তিনি আপিল বিভাগের বিচারক পদে উন্নীত হন।
বিচারক হিসেবে কাজ শুরম্নর আগে আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে কাজ করেছিলেন সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। তার চাকরি আছে আরও তিন বছর।
বিচারপতি ওয়াহ্‌হাব মিঞার পদত্যাগের পর আপিল বিভাগে এখন বিচারক হিসেবে বিচারপতি মাহমুদ হোসেনের সঙ্গে আছেন বিচারপতি মো. ইমান আলী, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার।
১৯৫৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর জন্ম নেয়া সৈয়দ মাহমুদ হোসেন এলএলবি ডিগ্রি নিয়ে ১৯৮১ সালে আইন পেশায় যুক্ত হন। তার দুই বছর পর ওকালতি শুরম্ন করেন হাইকোর্টে।
নির্বাচন কমিশন গঠনে রাষ্ট্রপতি গঠিত দুটি সার্চ কমিটির সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন সৈয়দ মাহমুদ হোসেন।
স্বাগত সুপ্রিম কোর্ট বারের
এদিকে জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘন হলেও নতুন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নিয়োগকে স্বাগত জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি।
সংগঠনের কার্যনির্বাহী পর্ষদের জরম্নরি বৈঠকের পর শনিবার সন্ধ্যায় এক সংবাদ সম্মেলনে নতুন প্রধান বিচারপতিকে স্বাগত জানানো হয়।
সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন বলেন, ‘অবশ্যই আমরা বলবো এখ?ানে সুপার সেশন (জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘন) হয়েছে। আইনজীবী সমিতি সুপার সেশনের বিরম্নদ্ধে। কিন্তু এরপরও পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে এ নিয়োগটি শুক্রবার হয়েছে। সে কারণে আমরা মনে করি বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতির শূন্য পদ পূরণ হয়েছে।’
‘সে কারণে আমরা সিদ্ধান্ত্ম নিয়েছি জ্যেষ্ঠ আইনজীবীদের সঙ্গে আমাদের কার্যনির্ব?াহী কমিটির ১৪ জনকে শপথ অনুষ্ঠানে যাওয়ার দাওয়াত দেয়া হয়েছে, আমরা শপথ অনুষ্ঠানে যাব।’
রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় প্রধান বিচারপতিকে অভিনন্দন জানানো হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা এই প্রধান বিচারপতির নিয়োগকে স্বাগত জানাচ্ছি।’
জয়নুল আবেদীন বলেন, আশা করি নতুন প্রধান বিচারপতি আইনাঙ্গনে যে ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে তা রিপেয়ার করবেন।

উত্তর দিন

মন্তব্য করুন!

  Subscribe  
এর রিপোর্ট করুন